কোন প্রক্রিয়ায় একটি ব্লগ বা ওয়েবসাইট ইন্টারনেটে প্রকাশ পায়? ওয়েবসাইট ইন্টারনেটে লাইভ করার কাজের ধাপগুলো

একটা বাড়ি তৈরি করার ধাপগুলো কি তা আমরা গড়পড়তা অনেকেই জানি। কিন্তু আমরা যারা নিত্যদিন ইন্টারনেটে এতএত ওয়েবসাইট ব্রাউজ করি, ব্লগ পড়ি, কখনো কি ভেবে দেখছি যে প্রক্রিয়ায় কোনো ওয়েবসাইট ইন্টারনেটে প্রকাশ পায় তা কিভাবে হয়? মূলত কি কি ধাপ অনুসরণ করে একটা ওয়েবসাইট অনলাইনে প্রকাশিত হয় তা নিয়েই লিখব এই আর্টিকেলে। 

একটা বাড়ি যদি হয় অনেকগুলো ফ্লোর/ ফ্ল্যাটের সমন্বয়, তবে একটা ওয়েবসাইট হচ্ছে অনেকগুলো পেজের সমন্বয়। এই পেজকে বই খাতার পেজ ভেবে ভুল করবেন না! এগুলো হচ্ছে ওয়েবপেজ। বাড়ি তৈরির পর আপনার বাড়ি বাইরে থেকে সবাই একরকম দেখবে আর আপনি যেহেতু ভেতরে থাকবেন তাই ভেতরের আলাদা রূপটাও আপনি দেখবেন। ওয়েবসাইটের বেলাতেও এমন ব্যাবস্থা আছে যাকে আমরা বলি Backend এবং Frontend. ফ্রন্ট এন্ড হল যে অংশটা সবাই দেখতে পাবে বা বাইরের স্বাভাবিক ভিউ। যেমন আমরা যারা ফেসবুক ব্যাবহার করি তারা এর Frontend দেখি শুধু। আর Backend এ ঢুকা সহ যাবতীয় কাজগুলো করে মার্ক জুকারবার্গ আর তার ফেসবুক ডেভেলপার টিম!

প্রতিটা ব্লগ বা ওয়েবসাইটই কম বেশি তথ্য, ছবি, অর্থাৎ কন্টেন্ট দিয়ে ভরপুর থাকে। এগুলোর আবার থাকার জন্য আলাদা জায়গাও দেয়া থাকে যাকে বলি Database. আর এই তথ্য বা কন্টেন্টগুলো কিভাবে ওয়েবসাইট তার ফ্রন্টএন্ডে প্রদর্শন করবে তা নির্ভর করে Backend programming ও Content management system এর উপর।

 

যে প্রক্রিয়ায় কোনো ওয়েবসাইট ইন্টারনেটে প্রকাশ পায় | Market Rocker

 

মোটামুটিভাবে বলতে পারি, আটটি ধাপে (৮ ধাপে) নানান কাজ সম্পন্ন করে কোনো ওয়েবসাইট ইন্টারনেটে প্রকাশ পায়।

 

১- প্রথমেই নির্ধারন করা হয় কেমন ব্যাকএন্ড প্রোগ্রামিং দিয়ে ওয়েবসাইটটি তৈরি করা হবে। আজকাল তো Content management system বা CMS হিসেবে WordPress বেশ জনপ্রিয়। তাছাড়া Magento, Joomla, ASP.NET এগুলোও ভালো জনপ্রিয়।

২- Backend programming এর কাজ শুরু হলে তার পাশাপাশি চলে ওয়েবসাইট ডিজাইনিং এর কাজ। এসময় খেয়াল রাখা হয় ওয়েবসাইটটি Responsive অর্থাৎ সবরকম সাইজের ডিভাইসের ডিসপ্লের/ ভিউপোর্টের সাথে মানানসই হচ্ছে কি না। কারণ বর্তমান সময়ে স্মার্টফোনের বদৌলতে মোবাইল ডিভাইস থেকে অনেক অনেক ভিজিটর পাওয়া যায় ওয়েবসাইটে।

৩- এ পর্যায়ে চলে সাইটের মানোন্নয়নের পাশাপাশি কন্টেন্ট ডেভেলপ করার কাজ। সাইটের লেখালেখি, স্থিরচিত্র, ভিডিও ছবি সবই কন্টেন্টের কাজ। কোথায় কিভাবে কোন কন্টেন্ট ডিসপ্লে হবে তার সব নির্ধারণ করা হয়।

৪- উপরের ৩ নম্বর ধাপের কাজ সব শেষ হবার পর Frontend Development Team কাজ শুরু করে। আমরা ইন্টারনেট ব্রাউজ করি ব্রাউজারের মাধ্যমে। যেমন- মজিলা ফায়ারফক্স, গুগল ক্রোম, সাফারি, ইত্যাদি। তো সেই ব্রাউজারে সাইটের ওয়েবপেজগুলো কিভাবে রান করবে তা নির্ধারন হয় সাইটের HTML, Java, CSS কোডিংয়ের উপর। সিএসএস (CSS) হচ্ছে Cascading Style Sheets যা সাইটকে মোবাইল ভিউ বা রেসপন্সিভ করার জন্য খুবই দরকারি। এই CSS কোডিং যার যত ভাল হবে তার সাইট ততটা ভালো রেস্পন্সিভ হবে। রেস্পন্সিভ মানে কি তা তো উপরেই বলে দিয়েছি!

৫- এই ধাপে ওয়েবসাইটকে বেটা ভার্সনে রান করে টেস্ট করা হয়। কোনো সফটওয়ার বা ওয়েবসাইট ওয়েবসাইটে মুক্ত করার আগে যে সার্ভারে টেস্ট রান করা হয় বা পরিখামূলক চালানো হয় সে সার্ভারকে স্টেজিং সার্ভার (staging server) বলে। সেই স্টেজিং সার্ভারে রান করে তারপর সাইটের Loading speed, Browser compatibility, Stress loading, Resolution চেক করা হয়। এরপর লাইভ সার্ভাবে ওয়েবসাইটটি লাইভ করে আরো একবার এসব টেস্ট করে দেখা হয়।

৬- এই ধাপে ওয়েবসাইটের SEO বা Search engine optimization এর কাজ করা হয়। এর মানে হচ্ছে অনলাইনে এতো এতো তথ্যের ভেতর থেকে এই ওয়েবসাইট আর ওয়েবসাইটের সার্ভ করা তথ্যগুলো যেনো সহজেই খুঁজে পাওয়া যায়। একটা রেডি সাইটের জন্য SEO এর ইম্পরট্যান্ট কিছু কাজ হল- সাইটের Meta title এবং Meta Description লেখা, XML sitemap করা + Google analytics কোড ওই ওয়েবসাইটের সাথে সংযুক্ত করা।

৭- কোনো ওয়েবসাইট ইন্টারনেটে লাইভ হয় Hosting এর মাধ্যমে। এই ওয়েব হোস্টিং সিস্টেমটা অনেকটা ইন্টারনেট দুনিয়ায় ওয়েবসাইটটিকে রাখার জন্য কিছু অংশ ভাড়া নেয়ার মতন। যেমনটা আমরা থাকার জন্য বাড়ি ভাড়া/ ফ্ল্যাট ভাড়া নিই। এতে করে ওয়েবসাইটটি ইন্টারনেটে থাকার একটা জায়গা পায় আর ভিজিটররা ওই ওয়েবসাইট ব্রাউজ বা ভিজিট করতে পারে।

৮- ওয়েবসাইট লাইভ করেই সব কাজ শেষ না। এর প্রোপার আপডেট + মেইন্টেনেন্স করতে হয়। সিএমএসের মধ্যেও কাজ করতে/ করাতে হয়। সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে ওয়েবসাইটের ফিচারে আনতে হয় পরিবর্তন সেইসাথে ফ্রন্টএন্ড আর ব্যাকএন্ডেও আনতে হতে পারে নতুনত্ব। এগুলোকে বলা হয় Website Revamp or Website redesign.

 

[MarketRocker এর আর্টিকেলগুলো ভালো লাগলে শেয়ার করুন সবার সাথে। নতুন কি বিষয়ে আর্টিকেল পেতে চান জানিয়ে নিচে কমেন্ট করলে চেষ্টা করবো তা নিয়ে লিখতে। এই ব্লগ কারো জানার আগ্রহ, ইচ্ছা- জাগ্রত করলে এবং কিছুটাও মেটাতে পারলে এই চেষ্টা সার্থক হবে]

 

5

Comments

comments