সার্চ ইঞ্জিনে ওয়েবসাইট র‍্যাঙ্কিং ফ্যাক্টর বেসিক

সার্চ ইঞ্জিন অপ্টিমাইজেশন বা SEO নিয়ে কথা বলতে গেলেই ব্যাকলিংকের কথা চলে আসে।

মানতেই হবে, গুগল সহ অন্যান্য সার্চ ইঞ্জিনগুলো এখন ওয়েবসাইট র‍্যাঙ্কিং ফ্যাক্টর হিসেবে ব্যাকলিংককে অনেক গুরুত্ব দিচ্ছে। তাইবলে যেনতেন ব্যাকলিংক হলেই সুবিধা করা যাবেনা! গুগল সর্বদা কোয়ানটিটি নয়, কোয়ালিটিতে বেশি গুরুত্ব দেয়। ব্যাকলিংক যতই হোক তা যদি ভালো কোয়ালিটির আর ইউনিক না হয় তাহলে বরং ওয়েবসাইটের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে।

তাহলে ভালো কোয়ালিটির ব্যাকলিংক কিভাবে পাওয়া সম্ভব?

আগে একটা সময় অল্প কিছু কন্টেন্ট থাকলে তার সাথে কিছু ব্যাকলিংক তৈরি করেই সহজে পেজ র‍্যাঙ্ক করানো সম্ভব হত। আগের ঐ দিন বাঘে খেয়ে ফেলেছে! এখন পেজ/ ওয়েব র‍্যাঙ্কের জন্য সঙ্গতিপূর্ন ব্যাকলিঙ্ক Relevant Backlink তৈরি করে র‍্যাঙ্ক করতে হবে। এবং খেয়াল রাখতে হবে ব্যাকলিংক গুলো গুগলের কাছে ন্যাচারাল বলে মনে হচ্ছে কি না। ইচ্ছামতন এলোপাতাড়ি ব্যাকলিংক কাজে আসবেনা।
google search engine ranking factors 2017 by Marketrocker BD
google search engine ranking factors 2017 by Marketrocker BD

 

Relevant Backlink কি জিনিস?

ধরে নিচ্ছি আপনার একটা ব্লগ/ ওয়েবসাইট আছে ‘’Fashion Blog’’. সেক্ষেত্রে আপনাকে ভালো মানের ব্যাকলিংক তৈরিতে অন্যসব ফ্যাশন ব্লগ খুঁজে নিতে হবে। আপনার চেনাজানা ফ্যাশন ব্লগ থাকতে পারে কিংবা গুগলে একটা শর্ট কোড ইউজ করে সার্চ করে বের করে নিতে পারেন আপনার রিলেভেন্ট অনেক পোর্টাল/ ব্লগ।

শর্ট কোডটি হচ্ছে- “Your Target Keywords” site:.gov inurl:blog “post a comment”

Your Target Keywords এর স্থানে আপনার কি ওয়ার্ড দিয়ে সার্চ করলেই ভালো কিছু পাবেন আশাকরি। আরো কিছু দিচ্ছি-
“A Your Target Keywords” site:.edu inurl:blog “post a comment”
“B Your Target Keywords” “This blog uses premium CommentLuv”
“C Your Target Keywords” “Notify me of follow-up comments?”

এরপর সার্চ রেজাল্ট থেকে আপনার রিলেভেন্ট পোর্টালগুলোর একটা লিস্ট এক্সেল ফাইলে সেভ করে রাখতে পারেন এবং এক এক করে সেইসব ব্লগ থেকে ব্লগ কমেন্ট… গেস্ট পোষ্ট এর মাধ্যমে নিজের ব্যাকলিংক নিতে পারেন।

ন্যাচারাল ব্যাকলিংক কিভাবে করব?

ব্যাকলিংকের আশায় থেকে এলোপাতাড়ি ওয়েবসাইট থেকে ব্যাকলিংক করলে সেটা গুগলের চোখে ন্যাচারাল হবেনা। এক্ষেত্রে গুগলের চোখে আপনার ব্যাকলিংক গুলোকে ন্যাচারাল হিসেবে প্রমান করাতে হবে। বেশি ব্যাকলিংক মানেই দ্রুত র‍্যাঙ্ক- এই ধারনার দিন শেষ। তবে আপনি চেষ্টা করে যদি প্রতিদিন ৬-১২ টা ব্যাকলিংক তৈরি করেন সেক্ষেত্রে অচিরেই ভালো র‍্যাঙ্ক করতে পারবেন। এক দিনেই ৪০/৫০ বা তারও বেশি ব্যাকলিংক করতে গেলেই গুগল আপনার কার্যকলাপকে স্প্যাম ধরবে। তখন গুগল আপনার পোর্টালকে সার্চ রেজাল্ট থেকে শাস্তিস্বরুপ ডাউন করে রাখতে পারে।

কোয়ালিটি সম্পন্ন ব্যাকলিংক পাবার উপায়-

কোয়ালিটিসম্পন্ন ব্যাকলিংক পেতে হবে আপনাকে ব্লগ কমেন্ট, গেস্ট পোষ্ট লিখা, ফোরামে লিখা, ও ডিরেক্টরি সাবমিশন বাড়াতে হবে। এতটুকু ভালোভাবে করলেও আপনি কিছুদিনের মধ্যেই ভালো রেজাল্ট পাবেন। তাছাড়া উপরের শর্টকোডগুলো ইউজ করেও ভালো ব্যাকলিংক পাওয়া সম্ভব। ধরুন প্রতিদিন ৫ টা করে ব্লগ কমেন্ট করলেন আর এক/ দুইদিন পরপর একটা করে গেস্ট পোষ্ট লিখে দিলেন। এর পাশাপাশি প্রতিদিন ৩/৪ টা ফোরামে লিখলেন বা তিনটা ডিরেক্টরি সাবমিশন করলেন। তবে মনে রাখবেন, আর্টিকেল কোয়ালিটি যেনো অবশ্যই ভালো হয় আর সেইসাথে আপনার ওয়েবের অনপেজ SEO যেনো যতটাসম্ভব পারফেক্ট হয়।

আপনি হয়ত ভাবতে পারেন, Social Bookmark ব্যাকলিংকের জন্য করাহয়। এটা ভুল। Social Bookmark কেবল ভিজিবিলিটি বাড়ায়।
ডিরেক্টরি সাবমিশনকেও অনেকে অকেজো বলে মনে করেন। এটাও ভুল। যেহেতু আমাদেরকে সব ব্যাকলিংক রিলেভেন্ট করতে হবে তাই আপনি রিলেভেন্ট ডিরেক্টরিগুলোতে যখন আপনার URL সাবমিট করবেন তখনই বুঝবেন কি ফলদায়ক এটা।

সব ব্যাকলিংক রিলেভেন্ট না হলে কি সমস্যা হবে?

একটু খেয়াল রাখার বিষয় হচ্ছে, কিছুক্ষেত্রে দ্রুত ভালো র‍্যাঙ্কিং এর জন্য আমরা কিছু টপ রেটেড ভ্যালুয়েবল সাইট থেকেও ব্যাকলিংক নিবো যদিও সেসব একেবারে আমাদের ব্লগ/ ওয়েবের রিলেভেন্ট না-ও হয়। তাতে অসুবিধা হবেনা। যেমন-

1. YouTube.com (PR9)
2. Google+ (PR9)
3. Mozilla.org (PR9)
4. Adobe.com (PR9)
5. TED.com (PR8)

কিভাবে করবো-

YouTube.com (PR9)
• Sign in the YouTube.
• Visit channel option
• Edit it and add your website’s name and URL.
• Save it and you are done.

Google+ (PR9)
• Sign in the Google+.
• Go to the About Section.
• Edit it and add your website’s name and URL.
• Save it and you are done.

Mozilla.org (PR9)
• Sign Up for free Mozilla account.
• Submit all the details.
• Activate the account by clicking on the verification link in your email.
• After activation, log in to your account and edit you profile page.
• Add a small bio about yourself with your website’s URL.
• That’s it and you have a dofollow backlink.

 Adobe.com (PR9)
• Sign up and create an account with Adobe.
• Create a profile and enter proper data.
• Go to Adobe Forums and post a new thread about any original looking problem along with your website’s URL.

TED.com (PR8)
• Sign Up for a free account at TED.
• Activate the account. Then, go to your Profile page.
• After that, edit the Profile and you will find a section to insert your websites’ name and URL.
• Enter the keywords and URL and save it.
• As a result, Enjoy the high authority, dofollow backlink to your blog.

এই আর্টিকেলে এই পর্যন্তই। মার্কেটরকারের আর্টিকেলগুলো আপনার ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে এবং ফেসবুকে শেয়ার করবেন। এই ব্লগের কোনো আর্টিকেল পড়ে আপনি এতটুকু কিছু শিখে থাকলে আমার ভালো লাগবে। শুভেচ্ছা!

 

[MarketRocker এর আর্টিকেলগুলো ভালো লাগলে শেয়ার করুন সবার সাথে। নতুন কি বিষয়ে আর্টিকেল পেতে চান জানিয়ে নিচে কমেন্ট করলে চেষ্টা করবো তা নিয়ে লিখতে। এই ব্লগ কারো জানার আগ্রহ, ইচ্ছা- জাগ্রত করলে এবং কিছুটাও মেটাতে পারলে এই চেষ্টা সার্থক হবে]
5

Comments

comments